bangla jocks

Bangla Jocks Collection 5

Bangla Jocks 5: বাংলা জেকস পাঁচ (কৌতুক)

(৪১)
তালেব :- কি রে পিপলু, দড়ি নিয়ে দৌড়াচ্ছিস কেন?
পিপলু :- আত্মহত্য করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু গাছে একটা শাপ দেখে পলিয়ে এলাম।

(৪২)
(Voice Change) পরীক্ষার হলে একজন পরীক্ষার্থী হাটাৎ জোরে চিৎকার দিয়ে উঠল।
শিক্ষক :- তুমি এত জোরে চিৎকার দিলে কেন?
ছাত্র :- স্যার, প্রশ্নে লেখা আছে ভয়েস্ চেঞ্জ
কর।

(৪৩)
১ম বন্ধু :- জানিস, অক্সিজেন ছাড়া মানুষ বাঁচতে পারে না। ১৭৭০ সালে এটা আবিষ্কৃত হয়েছিল।
২য় বন্ধু :- সত্যিই ! তার আগে মানুষ বাঁচত কি করে?

(৪৪)
১ম পাগল :- আচ্ছা বলতো নদীতে যদি আগুন লাগে তাহলে মাছেরা কোথায় যাবে?
২য় পাগল :- তাও জানিস না বুঝি ! গাছে উঠবে।
৩য় পাগল :- আরে বোকা ! মাছ কি গরু নাকি যে গাছে উঠবে।

(৪৫)
শিক্ষক :- যেকানে কিছুই জন্মায়না তাকে মরুভূমি বলে। বুঝেছ?
ছাত্র :- বঝেছি স্যার ।
শিক্ষক :- তাহলে একটা উদাহরন দাও।
চাত্র :- আমার দাদুর মাথার টাক স্যার।

(৪৬)
ছেলে :- বাবা, মনে আছে, তোমাকে যে কলেজ থেকে বের করে দেয়া হয়েছিল- সেই ঘটনা আমাদের একবার বলেছিলে?
বাবা :- হ্যাঁ, কেন?
ছেলে :- না, ভাবছি- ইতিহাস কিভাবে ঘুরে ঘুরে আসে?

(৪৭)
কানের অপারেশন করার পর
ডাক্তার :- আপনার কানের অপারেশন শেষ। এখন কেমন শুনছেন?
রোগী :- খুব ভালো।
ডাক্তার :- আমার ফি—টা——
রোগী :- জি——কিছু বলছিলেন?

(৪৮)
১ম ব্যক্তি :- আমি আগামী মাস থেকে যৌতুকের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলবো।
২য় ব্যক্তি :- আগামী মাসে কেন? এ মাসেই আন্দোলন শুরু করুন।
১ম ব্যাক্তি :- আরে বোকা এ মাসেই তো আমার বিয়ে, আর আগামী মাসে আমার বোনের।

(৪৯)
রোগী :- ডাক্তার সাহেব আমাকে বাঁচান, গলায় বড় একটা মাছের কাঁটা আটকেছে।
ডাক্তার :- হুঁ কাঁটা তো অনেক বড়। এই নিন ওষুধটা প্রতিদন সকাল বিকাল দুফোঁটা করে চোখে লাগাবেন ।
রোগী :-  অ্যাঁ! প্রবলেম গলায় আর ওষুধ দিচ্ছেন চোখের?
ডাক্তার :- জ্বি, এত বড় কাঁটা যে না দেখে খায় তার চোখের চিকিৎসা আগে করা প্রয়োজন।

(৫০)
বাড়িওয়ালা :- খোকা তোমার আব্বু আছেন?
খোকা :- জি না ।
বাড়িওয়ালা :- কখন আসবেন?
খোকা :- আপনি চলে গেলেই উনি খাটের নিচ থেকে বেরিয়ে আসবেন।

-সংগৃহীত (Collected)

Bangla Jocks 4: বাংলা জেকস চার (কৌতুক)

Bangla Jocks 3: বাংলা জেকস তিন (কৌতুক)

 

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *